অনান্য

আর্টিকেল লিখে আয় করুন

moneyBag24 Ads.bag

প্রযুক্তির এই যুগে বেশিরভাগ কাজই এখন অনলাইন ভিত্তিক। আর
অনলাইন মার্কেটিং জগৎ তো পুরোপুরি আর্টিকেল রাইটং এর উপর
নির্ভরশীল। সুতরাং, ক্যারিয়ার হিসেবে বেছে নিতে পারেন রাইটিংকে । এবং লেখালেখি করে আয় করতে পারেন নিঃসন্দেহে।

ওহ্! ক্যারিয়ার…

আমরা “ক্যারিয়ার” মানেই মনে করি। ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, উকিল ও জজ, ব্যারিস্টার হওয়া। অথবা পড়ালেখা শেষ করার পর। ভালো একটা ব্যাংক, অফিস, আদালত বা কোন নামকরা প্রতিষ্ঠানে চাকরি করা।

অথচ কোন কারণে। ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার হতে ব্যর্থ হলে। বা ভালো কোন প্রতিষ্ঠানে চাকরি না হলে। জীবণে তেমন উন্নতি করা সম্ভব না।
অপরদিকে, নিজস্ব ইউনিক উদ্যোগে ব্যবসা করা। সবার সামর্থে নাও থাকতে পারে। এর ফল স্বরুপ, নিজেকে অনেক সময় ব্যর্থ ভাবতে মনে হয়।

ব্যর্থদের জন্য সুখবর!

প্রযুক্তির এই যুগে। জীবণে “ব্যর্থতা” বলে কোন কিছু নেই। অর্থাৎ আপনার যেকোন প্রতিভাকে কাজে লাগিয়ে। আপনি সফলভাবে ক্যারিয়ার গড়তে পারেন। তেমনি একটি উপায় হলো: আর্টিকেল রাইটিং।

আর্টিকেল রাইটিং কি?

এখন আপনি যেই লেখাটি পড়ছেন। এটি “ফ্রিল্যান্স রাইটিং” ক্যাটাগরির একটি আর্টিকেল। সুতরাং আপনি যেই বিষয়ে ভালো জানেন। সেই বিষয়ে লেখালেখি করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

লেখালেখি করে আয়

আসলেই কি লেখালেখি করে আয় করা সম্ভব? অবশ্যই সম্ভব।
আমি আপনাকে কথা দিচ্ছি। চেষ্টা করলে 100% সফল হতে পারবেন। এবং প্রতিমাসে প্রায় ৫০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে, এর জন্য আপনার কিছু দক্ষতার প্রয়োজন:

  • ইংরেজিতে দক্ষতা
  • কি-বোর্ড না দেখে দ্রুত টাইপিং দক্ষতা
  • ইন্টারনেট ব্যবহারে অভিজ্ঞ
  • ধৈর্য্য’র সাথে রিসার্চে দক্ষ
  • প্রাত্যহিক লেখার চর্চা
  • সময় ও নিয়ম মেইনটেন্স করার অভিজ্ঞতা।

লেখালেখি করে আয় করার ওয়েবসাইট

আর্টিকেল লিখে আয় করার নিশ্চিত উপায় জানতে। সম্পূর্ণ লেখাটি শেষ পর্যন্ত ভাল করে পড়ুন। এবং প্রতিটি ওয়েবসাইটে গিয়ে আরো বিস্তারিত জানুন। প্রয়োজনে যাচাই বাছাই করার পর। ওই সাইটে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিন।

১) কন্টেনা

কন্টেনা একটি সেরা ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস। এখানে আপনি যে কোন বিষয়ের উপর লেখালেখি করে ইনকাম করতে পারেন। এদের নিজস্ব সম্পাদক পরিষদ কর্তৃক আপনার রচিত আর্টিকেলটি ভেরিফাই করার পর। গ্রহণযোগ্য হলে, লেখার কোয়ালিটি ও কোয়ান্টিটি অনুযায়ী। আপনাকে অর্থ প্রদান করবে।

২) ব্লগিং প্রো

“ব্লগিং-প্রো” প্রতিনিয়ত তাদের সাইটকে আপডেট করে আসছে। যাতে করে, ফ্রিল্যান্স রাইটারগণ এখান থেকে সেরা প্রাপ্য পায়। এখানে বিভিন্ন ব্লগের এডমিনরা এসে ব্লগ রাইটারদের হায়ার করে। এর জন্য এই সাইটটিতে ফ্রিতে সাইন আপ করে। “গিগ” করতে হয়।

লেখালেখি করে আয় করার দুর্দান্ত উপায়

৩) জার্নালিসম জবস

স্বপ্ন দেখা ভালো। আর যদি স্বপ্নটাই সত্যি হয়। তাহলে তো বিষয়টা হয় আনন্দের। ইয়েস!!
দেশিয় সাংবাদিকতার পাশাপাশি বিশ্বের বিভিন্ন সংবাদ সংস্থায় কাজ করে। আপনার ক্যারিয়ারকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেন। আর এই সুবর্ণ সুযোগ করে দিচ্ছে: জার্নালিসম-জবস

৪) ফ্রিল্যান্স রাইটিং

1997 সাল থেকে, এই সাইটটি ফ্রিল্যান্সারদের জন্য লেখালেখি করে আয় করার সুযোগ দিয়ে আসছে। বলতে পারেন, এটি অন্যতম একটি সেরা রাইটিং প্লাটফর্ম। এখান থেকে আপনি অনায়াসে উপার্জন করতে পারেন। প্রতিমাসে প্রায় 40 থেকে 50 হাজার টাকা।

৫) অল-ফ্রিল্যান্স-রাইটিং

এই সাইটটিতে আপনার পছন্দের কীওয়ার্ড এর উপর ভিত্তি করে সাবস্ক্রাইব করে রাখতে পারেন। এর ফলে, নিয়মিত ক্লায়েন্টের চাহিদা বুঝে রাইটিং করে আয় করতে পারেন। এই মার্কেটপ্লেসটি জনপ্রিয় হওয়ার কারণ হলো। প্রতিটি কনটেন্ট বাবদ $25-$250 পর্যন্ত ইনকাম করা যায়।

৬) মিডিয়া বিস্ট্রো

পাবলিক রিলেশন (জন সংযোগ) বিষয়ে লেখালেখি করে ইনকামের জন্য এটি একটি চমৎকার ওয়েবসাইট। এই সাইটে প্রতিটি আর্টিকেলের জন্য সর্বনিম্ন $30 ডলার দিয়ে থাকে।

৭) কনটেন্টলি.কম

ক্রিয়েটিভ ফ্রিল্যান্সারদের জন্য এটি অন্যতম বেস্ট রাইটিং ফ্রিল্যান্স বাজার। এখানে আপনার দক্ষতা অনুসারে কনটেন্ট লিখে আয় করতে পারেন। প্রতিমাসে $1000 ডলার পর্যন্ত।

৮) ট্রানজিশনস বোর্ড

এটি ভ্রমণ বিষয়ক একটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট। আপনার যদি ভ্রমণ বিষয়ে ভালো অভিজ্ঞতা থাকে। তাহলে এখানে ভ্রমণ বিষয়ক যেকোন আর্টিকেল লিখে আয় করতে পারেন দুর্দান্ত উপায়ে।

বাংলা ভাষায় আর্টিকেল লিখে আয় করুন

ইংরেজিতে দক্ষ না? বাংলা ভাষায় লেখালেখি করে আয় করতে পারেন সহজেই।
ইংলিশ হলো আন্তর্জাতিক মানের ভাষা। বিভিন্ন দেশের নানারকম ভাষার মানুষ ইংরেজি ভাষার মাধ্যমে কমিউনিকেট করে। সুতরাং, ইংলিশ ব্লগ সাইটগুলোতে ভিসিটর প্রচুর হবে। এটাই স্বাভাবিক। এবং যতো বেশি ভিসিটর, ততো বেশি ইনকাম হবে। ঠিক নয় কি?

তাই ইংলিশে আর্টিকেল লিখলে। বাংলা ভাষার তুলনায় ইনকাম বেশি হবে। এতে হতাশ এবং আশ্চর্য হবার কিছু নেই।

তবে, আপনার লেখার কোয়ালিটি। সার্চ ইঞ্জিন রেঙ্ক। এবং কনটেন্ট কোয়ান্টিটি ভালো হলে। বাংলা ভাষায় লেখালেখি করে অর্থ উপার্জন করা যায়। প্রতিমাসে প্রায় 10 থেকে 40 হাজার টাকা। তো, জেনে নেওয়া যাক। বাংলা ভাষায় লেখালেখি করে আয় করার কয়েকটি ওয়েবসাইট সম্পর্কে…

৯) প্রিয়.কম এ লিখে ইনকাম করতে পারেন

পিয়.কম এ নিয়মিত লক্ষাধিক ভিসিটর আসে। এই সাইটে কনটেন্ট লিখে সাবমিট করার পর। সর্বোচ্চ ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সম্পাদক পরিষদ কর্তৃক গ্রহণযোগ্য লেখাটি প্রকাশ করা হয়।

সুবিধা: অনান্য সাইটে পোষ্ট লেখার সময় প্রয়োজনীয় ছবি, লিংক ইত্যাদি যোগ করতে হয়। কিন্তু প্রিয়’তে এর প্রয়োজন হয় না। কারণ, আপনার লেখাটি প্রকাশ করার আগে। তাদের সম্পাদনা পরিষদ কর্তৃক প্রয়োজনীয় ছবি, ভিডিও ইত্যাদির সমন্বয়ে প্রকাশ করা হয়।

১০) ক্লোজ-উই.কম এ লেখালেখি করে আয়

ক্লোজ-উই.কম সাইটটি bissoy answer এর একটি প্রতিষ্ঠান। এখানে আপনি ক্যারিয়ার, টিউটোরিয়াল এবং যাবতীয় টিপস শেয়ার করে আয় করতে পারেন।

এখানে প্রতিটি লেখার জন্য ৩০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত দিয়ে থাকে। এবং প্রতিমাসে আপনার লেখা ভিউসের উপর ভিত্তি করে। আজীবণ এই সাইট থেকে আর্টিকেল লিখে আয় করতে পারেন।

    অবশেষে, সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ার পর। আপনার যদিও আরো কিছু জানার থাকে। তাহলে কমেন্ট বক্সে লিখে জানাবেন। ধন্যবাদ।।

    Show More
    moneyBag24 Ads.bag

    Related Articles

    2 Comments

      1. রিভিউ সূচক কমেন্টের জন্য শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি। নিয়মিত আমাদের সাথেই থাকুন।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Back to top button
    Close
    Close

    Adblock detected

    Ad blocker বন্ধ করুন।
    %d bloggers like this: