অনলাইনে আয়অনান্যআইডিয়াআউটসোর্সিংওয়ার্ডপ্রেসক্যারিয়ারটিউটোরিয়ালটিপস ও ট্রিকসরিভিউ

ই-বুক দিয়ে ইনকাম করুন

ই-বুক দিয়ে ইনকাম করা যায়। এই বিষয়টি এখনও হয়তো অনেকের অজানা থাকতে পারে। কারণ, আমাদের বাস্তবতায় প্রযুক্তি বিনোদন বলতে অধিকাংশরাই কেবল ইউটিউবিং, ফেসবুকিং ও সোশ্যাল মিডিয়ায় একটিভ থাকাকে বুঝে থাকি।

কিন্তু সকল জগতের পরেও যেনো একটি জগৎ কারো জন্য অপেক্ষার তর সয়ে থাকে। সেটা হলোঃ বই প্রেমিদের বই ও জ্ঞান রাজ্যের অন্যরকম জগৎ। হ্যাঁ, আপনি যদি অনলাইনে বই লিখে বা বিক্রি করে আয় করতে চাচ্ছেন বলে মনে করছেন।

তাহলে এই লেখাটি আপনার জন্যই। কেননা আপনি কিভাবে ই-বুক দিয়ে ইনকাম করবেন। সে ব্যাপারেই এই আর্টিকেলে লিখেছি।

ই-বুক কি?

ই-বুক বা ই-বই হল “বই এর ইলেক্ট্রনিক ভার্সন”। সাধারণত ইবুককে “পিডিএফ ফরম্যাট” এর বই বলা হয়। আর হ্যাঁ! প্রযুক্তির বিকাশের সমতুল্যের উন্নয়নের এই যুগে,ইবুক বা ই-বই লিখে বা বিক্রি করেও অনলাইন থেকে উপার্জন করা সম্ভব

ই-বুক দিয়ে ইনকাম

ইবুক এর মাধ্যমে দুই ভাবে ইনকাম করা যায়।
১) ইবুক লিখে।
২) ইবুক বিক্রি করে।

১) ইবুক লিখে আয়ঃ

আপনি যদি নির্দিষ্ট কোন বিষয়ে ভালো দক্ষ হয়ে থাকেন। এবং আপনার লেখনির হাত খুবই ভালো।

অর্থাৎ আপনি যদি নিয়মিত লেখালেখি করে অভ্যস্ত হয়ে থাকেন। তাহলে আপনার লেখাগুলোকে অনলাইন ভার্সন আকারে পিডিএফ বা যেকোন ফরম্যাটে কনটেন্ট হিসেবে বিক্রি করতে পারেন।

কোন বিষয়ে লিখে ভালো আয় করা যাবে?

উত্তরঃ মানুষ সমস্যার অধিভুক্ত। অর্থাৎ এক সমস্যা শেষ হতে না হতেই অন্য সমস্যার সৃষ্টি হয় শুধুমাত্র মানুষের মাধ্যমেই।

তাই সম-সাময়িক সমস্যা’র সমাধানসহ দৈনন্দিন ও প্রাত্যহিক প্রয়োজনীয় শিক্ষা, সংস্কৃতি, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি, রুপকথা ও বাস্তবতাসহ যেকোন বিষয়ে বই লিখেও আপনি ইনকাম করতে পারেন।

তবে, এখানে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টা হচ্ছেঃ আপনি যে বিষয়েই লিখুন না কেন। আপনার লেখার মান ভালো হতে হবে।

Ads.bag

এবং লেখাগুলো যেনো পাঠকদের জন্য সত্যিকারার্থে উপকারে আসে। সে দিকে খেয়াল করেই, বই লিখতে হবে।

ইবুক বিক্রি করে আয়

২) ইবুক বিক্রি করে আয়ঃ

হতে পারে, আপনি ভালো লিখতে জানেন না। তাই বলে কি আপনি অনলাইনে বই বিক্রির ব্যবসাও করতে পারবেন না?

ই-বুক দিয়ে ইনকাম করতে হলে যে, বই লিখতে জানতে হবে। এমনটা কিন্ত নয়। বরং আপনি অন্যের লেখা বই বিক্রি করেও অনলাইন থেকে প্রচুর টাকা আয় করতে পারবেন।

বই বিক্রি করে কেমন উপার্জন সম্ভব?

বাংলাদেশি এক ইউটিউবার (ব্যক্তি স্বার্থে নাম বলা নিষিদ্ধ) শুধুমাত্র ইবুক এফিলিয়েট মার্কেটিং করে $1500 এর উপরে উপার্জন করেছে।

বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ প্রায় এক লক্ষ বিঁশ/পঁচিশ হাজার টাকার মতো। তবে, তার কাঙ্খিত এই স্বপ্নের পিছনে ছুটতে। তিনি কিন্তু নিরলস চেষ্টাও করেছেন। তাহলে আপনি কেন পারবেন না?

আমি যদি কনটেন্ট মার্কেটিং (ব্লগসাইট ভিত্তিক) নিয়ে কাজ না করতাম। তাহলে, অ্যামাজন ও সংশ্লিষ্ট এফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্যই আগে প্লাণ করতাম।

কারণ, অ্যামাজন ও সংশ্লিষ্ট অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে, বিশ্ব বাজারে খুবই সহজ প্রক্রিয়ায় ইবুক বিক্রিসহ দৈনন্দিন জীবণের প্রতিটি পণ্যের অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনলাইনে উপার্জন করা সম্ভব

কিভাবে ইবুক লিখে আয় করবেন?

আপনি চাইলে ইবুক লিখে বিভিন্ন অনলাইন প্রকাশনীর কাছে আপনার বই বিক্রি করে দিতে পারেন।

এজন্য আপনার ও তাদের সমচুক্তিতে নির্দিষ্ট মূল্যের বিনিময়ে নিজের লেখাগুলো বিক্রি করতে পারেন।

অথবা অ্যামাজন ও ক্লিক ব্যাংক এর মতো, কোন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ইবুক বিক্রি করেও আপনি প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

এজন্য যেসব দক্ষতা দরকারঃ

  • কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে বিস্তারিত লেখার দক্ষতা থাকতে হবে।
  • লেখনির মাধ্যমে পাঠকের জানার আগ্রহ পূরণে সক্ষমতা অর্জন করতে হবে।
  • অ্যাফিলিয়েট পার্টনার ও প্রোগ্রামিং এর উপর ধারণা থাকতে হবে।

জনপ্রিয় ও সেরা কয়েকটি ইবুক ক্রয়-বিক্রয়ের ওয়েবসাইট হলোঃ
Payhip.com.
Selz.com.
Fiverr.com.
Amazon.com.

Feiyr.com.
Blurb.com.
Google Play

বিঃদ্রঃ এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে অনলাইন রিসার্চ তো আপনাকে করতেই হবে।

কারণ, আপনি বর্তমানে যে লেখাটি পড়ছেন। এটি আপনার জন্য ই-বুক লিখে উপার্জনের একটি “বেসিক আইডিয়া” মাত্র।

ইবুক বিক্রি করে কিভাবে আয় করবেন?
ই-বুক দিয়ে ইনকাম
ই-বুক দিয়ে ইনকাম করুন

জনপ্রিয় কোন লেখকের বই বা সমসাময়িক যেকোন ক্যাটাগরির উপর লিখিত ইবুক । অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আপনি প্রতি মাসে ইনকাম করতে পারবেন।

কয়েকটি টপ লেভেল অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সাইট। যেখান থেকে আপনি ইবুক এফিলিয়েট করতে পারবেনঃ

eBooks.com
Bookroo
Knetbooks
AudiobooksNow
Chronicle Books
Thriftbooks.com

ই-বুক লেখকদের জন্য কিছু নির্দেশিকাঃ

  • লেখা শুরু করার আগে যতটা সম্ভব রিসার্চ করুন। অনলাইন রিসার্চের মাধ্যমে যাচাই করুন, আপনি যে বিষয়ে লিখতে চাচ্ছেন।

সে বিষয়টাতে পাঠকরা কতটা আগ্রহী বা পাঠকরা কি এই ধরণের কোন ইবুক চাচ্ছে কিনা।

  • আপনি যে বিষয়ে লিখছেন। সেই বিষয়ে পাঠকদের আগ্রহ ও চাহিদা থাকলে রিসার্চ করুন।

অর্থাৎ তারা কেমন লেখা পছন্দ করে বা আশা করে । সে সম্পর্কে একটি বাস্তব ধারণা তৈরি করুন।

  • কোন বিষয়গুলো অনান্য লেখকরা সহজে ফুটিয়ে তুলতে বা উপস্থাপন করতে পারেনি।

আপনি সেই টপিকসগুলো নিজের লেখায় সুন্দর, সহজ ও সাবলীল-প্রাঞ্জল ভাষায় উপস্থাপন করার চেষ্টা করবেন।

  • খেয়াল করুন আপনি এমন কিছু নিয়ে লিখতে পারেন কিনা যেটা অন্যরা ভালোভাবে লিখেনি কিন্তু চাহিদা আছে।
  • সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ হলোঃ আপনি কেমন পাঠক এর জন্য লিখছেন তা ঠিক করে নিন।

কিভাবে লিখলে, সেই পাঠক আপনার লেখা থেকে সবচেয়ে বেশি উপক্রিত হবে বা বিরক্ত হবে না।

তা নিয়ে আগে ভাবুন। এবং কিভাবে কোন টপিকস এর সমন্বয়ে লেখাগুলোর ধারাবাহিকতা বজায় রাখা যায়। সে ব্যাপারে নির্দিষ্ট একটি নিয়মও তৈরি করবেন।

  • মার্কেটে আপনার বাছাই করা টপিক এর চাহিদা যাচাই করুন।
  • এবং ধৈর্য্য ধরে বই লেখা শেষ করুন।

পরিশেষে, এই লেখাটি ই-বুক দিয়ে ইনকাম করার একটি প্রাথমিক ধারণামূলক কনটেন্ট। লেখাটির সম্পূর্ণটা পড়ার পরও যদি আপনার আরো কিছু জানার থাকে। তাহলে, কমেন্ট বক্সে লিখে জানান। ধন্যবাদ।।

Show More
moneyBag24 Ads.bag

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
close
Close
Close

Adblock detected

Please! Close the Ads blocker.
%d bloggers like this: