অনলাইনে আয়অনান্যআইডিয়াআউটসোর্সিংওয়ার্ডপ্রেসটিউটোরিয়ালটিপস ও ট্রিকসপ্রশিক্ষণফ্রিল্যান্সিং
আপডেট

ফাইবার গিগ মার্কেটিং করে আয়

moneyBag24 Ads.bag

ফাইবার গিগ মার্কেটিং হলো ফ্রিল্যান্সারদের জন্য অন্যতম সেরা একটি উপায়। যেখানে আপনি ফ্রিল্যান্সের কাজ পাওয়ার জন্য গিগ পোস্ট করত পারেন। গিগ হল আপনি বায়ারকে কি কাজ করে দিতে পারবেন, তার বর্ণনা। অর্থাৎ আপনার এই গিগ বা সার্ভিস বর্ণণা পড়ে। যদি কারো আপনার দেয়া এই সেবা বা কাজ করিয়ে নেয়ার দরকার হয়, তবে সে আপনার গিগ ক্রয় করবে। ফাইভারে একটি গিগ এর নূন্যতম দাম হলোঃ $5 ডলার। অর্থাৎ কেউ গিগ ক্রয় করার পর আপনাকে কাজটি করে দিতে হবে। এবং কাজের বিনিময়ে আপনি সর্বনিম্ন ৫ ডলার পাবেন।

ফাইবার মার্কেটপ্লেস

আমার মতে, অফিসিয়ালি এমন কোন বিষয় নেই। যেই বিষয়ে অনলাইনে ফ্রিল্যান্সিং ও বিজনেস করা সম্ভব না।
সুতরাং আমাদের দৈনন্দিন জীবণের প্রয়োজনীয় কাজগুলো অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোর মাধ্যমে করে নেওয়া সম্ভব।

তবে, সকল মার্কেটপ্লেস এ কিন্তু একসাথে সকল সার্ভিস পাওয়া যায় না। তাই বায়াররা নির্দিষ্ট সার্ভিসটি ফ্রিল্যান্সার এর মাধ্যমে করিয়ে নেওয়ার জন্য নির্দিষ্ট মার্কেটপ্লেসয়েই যায়। তাহলে প্রশ্ন হলোঃ

ফাইভার কি?

ফাইভার হলোঃ আপওয়ার্ক, গুরু ডট কম, ফ্রিল্যান্সার ডট কম এর মতোই অন্যতম সেরা একটি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস। যেখান থেকে আপনি আপনার দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে সার্ভিস বিক্রির মাধ্যমে আয় করতে পারবেন। তবে অনান্য মার্কেটপ্লেস এর তুলনায়, এই মার্কেটপ্লেস এর স্বতন্ত্র বা ইউনিক একটি বৈশিষ্ট্য হলোঃ এখানে আপনি যেকোন সার্ভিস $5 ডলারের বিনিময়ে বিক্রয় করে আয় করতে পারবেন।

ধরুন, আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন এর কাজ পারেন। এবং আপনি লোগো ডিজাইন বা যে কোন ডিজাইন করে দেওয়ার মাধ্যমে ফাইভার থেকে গিগ বিক্রি করে উপার্জন করতে পারেন।

তো সেক্ষেত্রে ধরুণ, আপনার গিগ এ আপনি লিখলেনঃ আমি 5 ডলারের বিনিময়ে একটি লোগো ডিজাইন করে দিব। এরপর আপনার গিগ টাইটেল ও ডিস্ক্রিপশন পড়ে, যদি কোন বায়ার আপনাকে দিয়ে লোগো তৈরি করাতে চায়। তাহলে সে $5 ডলারের বিনিময়ে কাজটি করিয়ে নিতে পারবে। ফাইভারে গ্রাফিক ডিজাইন ছাড়াও বিভিন্ন ক্যাটাগরীর কাজ পাওয়া যায়।

fiverr এ কি কি কাজ পাওয়া যায়?

যদিও প্রতিদিন বায়ারের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন ধরণের কাজ পাওয়া যায়। তবে, নির্দিষ্ট কয়েকটি ক্যাটাগরির মধ্যেই এগুলো সীমাবদ্ধ থাকে। যেমনঃ

  • ভিডিও এন্ড এনিমেশন
  • মিউজিক এন্ড অডিও
  • প্রোগ্রামিং এন্ড টেকনোলজি (প্রযুক্তি বিষয়ক সার্ভিস)
  • বিজনেস
  • লাইফস্টাইল
  • আর্কিটেকচার
  • ই-কমার্স এবং
  • গেমিং সহ বিভিন্ন ক্যাটাগরির কাজ পাওয়া যায়।
ফাইভার এ সার্ভিস বিক্রি করে আয় করার নির্দেশিকা

ফাইভার মার্কেটপ্লেস এ সার্ভিস বিক্রি করে আয় করার জন্য আপনাকে কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করতে হবেঃ-

  • প্রথমত, আপনাকে প্রচুর প্রাকটিস করতে হবে।
  • #ফাইভার গিগ তৈরি করতে হবে।
  • গিগ এর জন্য কভার ইমেজ তৈরি করতে হবে।
  • আকর্ষনীয় গিগ ডিস্ক্রিপশন লেখা জানতে হবে।
  • গিগ পোস্টিং এর জন্য, সঠিক ট্যাগ ও কি-ওয়ার্ড ব্যবহার করা জানতে হবে।
  • গিগ রিলেটেড ভিডিও ফ্লাইং এ্যাডস তৈরি করা জানতে হবে।
  • সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রচার করার জন্য প্রয়োজনীয় টুলস সম্পর্কে দক্ষতা থাকতে হবে।

ফাইভার টিউটোরিয়াল

ফাইভার এ ফ্রিল্যান্সিং করার আগে আপনাকে নিশ্চিত হতে হবে যে, আপনি যেই সার্ভিসটি নিয়ে কাজ করতে যাচ্ছেন। সেই বিষয়ে আপনি সত্যিই অভিজ্ঞ কিনা। যদি আপনার অভিজ্ঞতার কমতি থাকে। তাহলে প্রয়োজনীয় প্রাকটিস করুন। দরকার হলে, বিভিন্ন টিউটোরিয়াল দেখতে পারেন। ইউটিউব, ডেইলি-মোশন, ফেসবুকসহ অনলাইনে প্রচুর পরিমাণে ফ্রিতে ভালো মানের টিউটোরিয়াল পাওয়া যায়। তবে, আপনাকে সেগুলো কষ্ট করে খুঁজে নিতে হবে।

পড়ুন: ওয়েবসাইট বিক্রি করে ইনকাম

আর হ্যাঁ, অনলাইন সার্ভিসগুলো যেহেতু কাজের চাহিদা ও বাজার দরসহ বিভিন্ন বিষয়ের উপর ভিত্তি করে, প্রতিনিয়ত সবকিছুই আপডেট হচ্ছে। তাই, কাজের কৌশল এবং দক্ষতার চাহিদার ধরণও পাল্টাচ্ছে। সুতরাং একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে নিজেকে আপডেট রাখতে, সব সময় মার্কেটপ্লেস ( বিশেষ করে ফাইভার সম্পর্কিত ) টিউটোরিয়ালগুলো ফলো করতে পারেন।

ফাইবার গিগ মার্কেটিং সম্পর্কিত ফ্রিতে টিউটোরিয়াল পেতে এখানে ভিসিট করতে পারেন

আরো একটি সাইট আছে। তা হলোঃ ফাইভার টিউটোরিয়ালস ডট ক

ফাইভার গিগ মার্কেটিং

ফাইবার গিগ মার্কেটিং
ফাইবার গিগ মার্কেটিং

ফাইভারার এ গিগ মার্কেটিং করার জন্য আপনাকে নিচের বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবেঃ

  • প্রথমে আপনার সেরা স্কিলটি (দক্ষতা) খুঁজে বের করুন। এবং তার উপর একটি গিগ তৈরির পরিকল্পনা করুন।
  • তারপর ফাইবারে একটু ঘাটাঘাটি করে দেখে নিন। অর্থাৎ রিসার্চ করুন।

প্রয়োজনে ফাইভার মার্কেট এ আপনার স্কিল অনুযায়ী, বায়ারের চাহিদা কেমন ও কিভাবে অন্যরা কাজটি কমপ্লিট করে ভালো রিভিউ পাচ্ছে। সে বিষয়ে অনলাইন রিসার্চ করুন। আপনি যে ধরণের গিগ বানাতে চাচ্ছেন সেগুলো বর্তমান মার্কেটে কেমন চলছে, তা নিয়েও রিসার্চ করুন।

  • গিগ এর জন্য সুন্দর একটি ছবি তৈরি করুন। কারণ ছবি সুন্দর ও আকর্ষনীয় হলে, আপনার গিগ এর প্রতি বেশি মানুষ আকৃষ্ট হবে।
  • প্রয়োজনীয় ডেস্ক্রিপশন যোগ করুন। প্রয়োজনে অন্যরা কিভাবে গিগ-ডেস্ক্রিপশন লিখেছে।

সেটা ফলো করতে পারেন। তবে কখনই অন্যের লেখা হুবুহু কপি পেস্ট করবেন না। তাহলে, স্পামিং এ পড়তে পারেন। অথবা একাউন্ট ক্রাশ খাওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে। এবং আপনার একাউন্ট ব্যান হতেও পারে।

সবশেষে, সব তথ্য দেয়া হলে গিগ পাবলিশ করুন। এবং লিংকডিনসহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া ও অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং কমিউনিটিতে শেয়ার করতে থাকুন।

তাহলে আশা করি, আপনি ফাইভার থেকে ইনকাম করতে পারবেন

এর যাবতীয় আপডেট টিপস পেতে এই দুটি ওয়েবসাইটে ভিসিট করতে পারেনঃ বিঃদ্রঃ এই দুটি সাইটের টিউটোরিয়াল ইংলিশ ভাষায়।
১) ফাইভার ব্লগ
২) ফাইভার টিউটোরিয়াল (http://fiverrtutorial.com/)

পরিশেষে, বলতে চাই। ফাইবার গিগ মার্কেটিং করে ইনকাম করার জন্য এই আর্টিকেলটিই আপনার জন্য যথেষ্ঠ দিক-নির্দেশনা নয়। কারণ, এটি অনলাইন ইনকামের একটি আইডিয়া মাত্র। সুতরাং, ফাইভার ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য আপনাকে অনলাইনে বিভিন্ন সোর্স থেকে আরো বেশি করে রিসার্চ করতে হবে এবং নিয়তিম শিখতে হবে।

Show More
moneyBag24 Ads.bag

Related Articles

5 Comments

  1. একটি সুন্দর লেখা। পড়ে ভালো তথ্য জানা হল। ফাইভারে আমার একাউন্ট খোলা আছে। গিগও করা আছে পাঁচটির মত। কিন্তু আজ অবধি কাজ না পাওয়ায় অনেকটা ফাইভার বিমুখ আছি। পড়াটি পড়ে আবার আগ্রহ সৃষ্টি হল। দেখা যাক গাইডলাইন ফলো করে কিছু করা যায় কিনা। ধন্যবাদ।

    1. Chandra Bikash Chacma! অাপনা‌কেও অসংখ্য ধন্যবাদ, অামা‌দের পে‌াস্ট‌টি মূল্যায়ন করার জন্য

    2. ধন্যবাদ! আপনাদের সাফল্যেই আমরা সার্থক।
      নিয়মিত মানিব্যাগ টুয়েন্টিফোর (moneyBag24.com) এর সাথেই থাকুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close

Adblock detected

Ad blocker বন্ধ করুন।
%d bloggers like this: